ইউটিউব থেকে আয় ২০২১-tech515.com

https://tech515.com/wp-content/uploads/2021/10/ইউটিউব-থেকে-আয়-২০২১-tech515.com-3.jpg

Table of Contents

আমাদের এই ব্লগের কিভাবে ইউটিউব থেকে আয় করবেন সে সম্বন্ধে আলোচনা করা হলো

Youtubeথেকে আয় নিয়ে আমাদের মনে অনেক ধরনের প্রশ্ন জাগে সেই প্রশ্নগুলোর উত্তর আজকে দেব।

সাধারণত ইউটিউব থেকে আয় নিয়ে আলোচনা করতে গেলে নিম্নের প্রশ্নগুলো আমাদের মাঝে চলে আসে-

  • ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায় কি ?
  • ইউটিউব থেকে আয় করবেন যেভাবে বা আয় করার পদ্ধতি কি ?
  • Youtube থেকে টাকা ইনকাম করা যায় ?
  • চ্যানেল খুলবো কিভাবে ?
  • চ্যানেলের টাকা তুলব কিভাবে ?
  • Youtube চ্যানেল মনিটাইজেশন কি ?
  • Youtube চ্যানেল এর প্রকারভেদ ?

ইউটিউব থেকে আয় প্রশ্নের উত্তর আলোচনার পূর্বে ইউটিউব এর ইতিহাস নিয়ে একটু আলোচনা করা যাক।

বর্তমান পৃথিবীতে সমস্ত সার্চ ইঞ্জিনের মধ্যে প্রথমে আসে গুগোল এবং এরপরেই ইউটিউব এর নাম

ইউটিউব বর্তমান যুগের সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি সার্চ ইঞ্জিন ।

ইউটিউব এ প্রত্যেকদিন প্রায় 2 বিলিয়ন ভিজিটর ভিজিট করে থাকে,

প্রত্যেক মিনিটে 300 Hours মতো ভিডিও আপলোড করা হয়ে থাকে ।

এর আবিষ্কারক হচ্ছে তিনজন বন্ধু যারা একসাথে , স্টিভচেন, চ্যাট হারলি, এবং জাওয়াদ করিম

2005 সালের 14 ই ফেব্রুয়ারি এই ওয়েবসাইটটি রেজিস্টার করেন ।

পরবর্তীতে গুগল তাদের কাছ থেকে 2006 সালের 9 অক্টোবর $1.65 billion দিয়ে কিনে নেন ।

ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায়

ইউটিউব থেকে আয় করার উপায় হল ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে তারমধ্যে ভিডিও আপলোড করতে হবে

এবং সেই আপলোডকৃত ভিডিও ইউটিউব এ মনিটাইজ হলে, এবং এডসেন্স থেকে অ্যাপ্রুভ হলে

আপনার আপলোডকৃত ভিডিওতে কিছু এড শো করার মাধ্যমে ইউটিউব আপনাকে কিছু রেভিনিউ দিবে ।

সাধারণত আপনার ভিডিও ভিউজ উপর নির্ভর করে ইনকাম জেনারেট হবে ।

প্রতি হাজার ভিউতে তিন থেকে সাত ডলারের মত আয় করা যায় ।

Youtube থেকে আয় করবেন যেভাবে বা আয় করার পদ্ধতি

ইউটিউব থেকে আয় করার কিছু পদ্ধতি আছে ,প্রথমত ভিডিও আপলোড করলে এডসেন্স থেকে ইনকাম জেনারেট হয়

তাছাড়া বিভিন্ন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করেও ইনকাম করা যায় ।

বিভিন্ন কোম্পানির তাদের পণ্যের লিংক ইউটিউব ডেসক্রিপশন দিতে দিবে ,

সেই লিঙ্কে ক্লিক করে কেউ যদি কোন পণ্য কিনে তাহলে

সেটা থেকে একটি কমিশন পাওয়া যায় ।

তাছাড়া বিভিন্ন স্পনসর পণ্য কিংবা প্রোডাক্টের রিভিউ ভিডিও

দিয়ে ও ইনকাম করা যায় ।

Youtube থেকে টাকা ইনকাম করা যায়

ইউটিউবে এই কয়েকটি মাধ্যমে অনেকে লাখ লাখ টাকা আয় করছে,

আপনার ইনকাম আপনার চেষ্টার উপর নির্ভর করবে, তারা চেষ্টা করেছে এজন্য পেরেছে

আপনি যদি সেরকম চেষ্টা করেন আপনিও একটা সময় যেয়ে লাখ লাখ টাকা আয় করতে পারবেন,

তবে সেরকম চেষ্টা করা লাগবে, অনেকে আছে ইউটিউবে চ্যানেল খুলে কিছুদিন ভিডিও দিল,

তারপর সেরকম আশানুরূপ ভিউজ না হলে ভিডিও দেওয়া বন্ধ করে দেয়, এটা মোটেও করা যাবে না,

আপনাকে আপনার কনটেন্ট গুলো মান ভালো করতে হবে, এবং ভিডিও আপলোড করে যেতে হবে,

দেখবেন এক সময় না এক সময় আপনি সাকসেস হবেন ।

Youtube চ্যানেল খুলবো কিভাবে

প্রথমে আপনি একটি জিমেইল তৈরি করবেন, তারপর ইউটিউব এর ওয়েবসাইটে যেয়ে

লগইন করার পরে উপরে ডানদিকে ছোট একটি আইকন

যে যেয়ে মেনু আছে সেখানে যেয়ে ক্রিয়েটর স্টুডিও তে ক্লিক করতে হবে,

ক্রিয়েটর স্টুডিও অপশনে ক্লিক করার পরে নিজের

চ্যানেলের ড্যাশবোর্ড দেখতে পারবেন

সেখানে আপনার নাম সবকিছু দেখতে পারবেন, এবং ভিডিও আপলোড করার পূর্বে

চ্যানেলটি অবশ্যই ভেরিফাই করে নিতে হবে, ভেরিফাইয়ের জন্য

বামপাশের চ্যানেল অপশনে ক্লিক করে সেখানে ভেরিফাই অপশনে

আপনার মোবাইল নাম্বার দিয়ে চ্যানেল টি ভেরিফাই করে নেন ।

তারপর আপনি ভিডিও আপলোড করতে পারবেন ।

আপনি একাধিক চ্যানেল খুলতে চাইলে ক্রিয়েটর স্টুডিও অপশনে

ক্লিক করার পরে সেটিং অপশনে যেয়ে creat new youtube channel

অপশন পেয়ে যাবেন।

Youtube চ্যানেলের টাকা তুলব কিভাবে

আপনার চ্যানেলের যখন 1000 subscriber এবং 4000 H ওয়াচ টাইম হয়ে যাবে

তখন আপনি মনিটাইজেশন পাবেন, এবং মনিটাইজেশন পাওয়ার পরে,

গুগল অ্যাডসেন্স থেকে আপনার Channel অ্যাড স এর মাধ্যমে

যে ডলার আর্ন করবেন সেটা আপনার ব্যাংকে ট্রান্সফার হয়ে যাবে ।

সেজন্য আপনাকে এডসেন্স একাউন্টে আপনার

যে কোন একটি ব্যাংকের ডিটেলস সেখানে আপলোড করতে হবে ।

Youtube চ্যানেল মনিটাইজেশন কি

চ্যানেল মনিটাইজেশন আলোচনা করার পূর্বে একটু গুগল এডসেন্স নিয়ে আলোচনা করা যাক

Google Adsenceহচ্ছে গুগলের একটি প্রোডাক্ট আপনার Youtube Channel মনিটাইজেশন

করার পরে এখানে একাউন্ট খুলতে হয় ।

এবং এখান থেকেই আপনার ইউটিউব ভিডিওতে এড শো করানো হয়

কি ব্লগ সাইট কি ইউটিউব চ্যানেল যেটাই হোক, যদি মনিটাইজ হয়, তাহলে এডসেন্স

থেকে আপনার ইনকাম হতে থাকবে ।

চ্যানেল মনিটাইজেশন বলতে ইউটিউব এর একটি রুলস কে বোঝায় যেই রুলস অনুযায়ী আপনাকে

আপনার চ্যানেলে যদি এড শো করাতে চান তাহলে ইউটিউব

অবশ্যই আপনার Channel 1000 Subscriber এবং 4000 H ওয়াচ টাইম পূর্ণ হতে হবে

পূর্ণ হয়ে গেলে আপনি এপ্লাই করবেন এবং ইউটিউব টিম সেটা পর্যালোচনা করবে

এবং পরবর্তীতে আপনার চ্যানেলকে অ্যাপ্রুভ করলে,

আপনার চ্যানেলে অ্যাড শো করা শুরু হয়ে যাবে ।

Youtube চ্যানেল এর প্রকারভেদ

আপনি যেসকল ধরনের ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে পারবেন তারমধ্যে উল্ল্যেখযোগ্য নিম্নে দেওয়া হলঃ

  • ব্লগ চ্যানেল
  • রান্নার চ্যানেল
  • গেমিং চ্যানেল
  • নিউজ চ্যানেল
  • স্পোর্টস চ্যানেল
  • টেক চ্যানেল
  • ফানি ভিডিও চ্যানেল
  • ধর্মীয় চ্যানেল
ব্লগ চ্যানেল

ব্লগ চ্যানেল হচ্ছে জনপ্রিয় একটি বিষয়, বিষয়টি নিয়ে আপনার চ্যানেল তৈরি করলে,

অল্পদিনে মনিটাইজেশন হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে,

যদি সুন্দর video তৈরি করা যায় তাহলে channel monitization হতে

অন্যান্য ক্যাটেগরি তুলনায়, এই ক্যাটাগরিতে খুব তাড়াতাড়ি 1000 সাবস্ক্রাইবার এবং

4000 ঘন্টা ওয়াচ টাইম পাওয়া যায়

একমাত্র ব্লগ সাইটের ক্যাটাগরিতেই আপনি আপনার নিজস্ব সব টাইপের ভিডিও দিতে পারবেন

কিন্তু অন্যান্য ক্যাটাগরির চ্যানেলগুলিতে, যে ক্যাটাগরি চ্যানেল সে ক্যাটাগরি অনুযায়ী ভিডিও দিতে হবে

ধরুন আপনি একটি রান্নার চ্যানেল ক্রিয়েট করেছেন, ইউটিউব এর রুলস অনুযায়ী

তাহলে সেখানে শুধু রান্নার বিষয়গুলি দেখানো যাবে

অন্যান্য বিষয়ে দেখালে আপনার চ্যানেল মনিটাইজেশন পাবে না, ওয়াচ টাইম এবং সাবস্ক্রাইবার যতই বেশি হোক ।

রান্নার চ্যানেল

রান্নার চ্যানেল মূলত একটি জনপ্রিয় চ্যানেল, আপনি সাধারণত যে রান্নাবান্না জানেন সেটা নিয়ে

আপনি একটি চ্যানেল খুলতে পারেন, এবং ভিডিও আপলোড দিতে পারেন, এই

ক্যাটাগরিতে খুব অল্প সময়ে সাবস্ক্রাইবার এবং ওয়াচ টাইম পাওয়া যায় ।

গেমিং চ্যানেল

Gaming Channel ওপেন করে আপনি Monetization পেতে পারেন ।

তবে ইউটিউবে নতুন রুলস অনুযায়ী ভিডিওর সাথে আপনার ভয়েজ দিতে হবে বা ফেস দেখাতে হবে।

নিউজ চ্যানেল

নিউজ চ্যানেল বলতে আপনি দৈনিন্দিন পত্রিকাগুলো যে আছে

তার ডিটেলস পড়ে শোনাবেন সেটাকে,

আমি নিউজ চ্যানেলে হিসেবে বলেছি , এক কথায় দৈনিন্দিন নিউজ গুলোর বর্ণনা বলা যায় ।

এই ক্যাটাগরির চ্যানেলে ভালো ভিউ পাওয়া যায় ।

স্পোর্টস চ্যানেল

স্পোর্টস চ্যানেল বলতে খেলাধুলার আলোচনা, লাইভ খেলা দেখানো হতে পারে

এই ক্যাটাগরিতেও ভালো ভিউ পাওয়া যায়

টেক চ্যানেল

টেক রিলেটেড চ্যানেলগুলো খুব জনপ্রিয় চ্যানেল যার মাধ্যমে মানুষ,

যে বিষয়টি জানেনা সেটা ইউটিউব এর মাধ্যমে জানার সুযোগ হয়,

সেটা জানার জন্য মানুষ টেক চ্যানেলগুলিতে সার্চ দেয়,

এবং এর মাধ্যমে জানতে পারে, এই ক্যাটেগরির চ্যানেলে ভিউজ বেশি হয় এবং সাবস্ক্রাইবার অনেক থাকে ।

ফানি ভিডিও চ্যানেল

ফানি ভিডিও চ্যানেল গুলি দিন দিন অনেক জনপ্রিয়তা পাচ্ছে,

এখন আমাদের দেশে অনেক ফানি ভিডিও চ্যানেল তৈরি হয়েছে,

যা জনপ্রিয়তার দিক থেকে অন্য ক্যাটাগরি থেকে কোন অংশে কম না ।

ধর্মীয় চ্যানেল

ধর্মীয় চ্যানেল গুলো মধ্যে যেমন ওয়াজের চেনেল, বিভিন্ন ধর্মীয় বক্তিতা করা হয়

সেগুলো ধারণ করে আপলোড করা হয়,

আবার অনেকে হামদ নাত ইসলামী গান গুলো করে চ্যানেলে আপলোড করে থাকে,

পরিশেষে কিছু কথা

ইউটিউব চ্যানেল ক্রিয়েট করার পাশাপাশি আপনাকে এর রুলস অবশ্যই জেনে নিতে হবে ।

যেরকম আপনি অন্যের কনটেন্ট হুবহু কপি করা বা নেওয়া যাবে না,

আপনি যে ক্যাটাগরির চ্যানেল ক্রিয়েট করেছেন সেই ক্যাটাগরিতেই ভিডিও আপলোড করতে হবে ।

অন্য ক্যাটাগরিতে ভিডিও আপলোড করলে আপনার চ্যানেল কখনোই মনিটাইজেশন পাবে না ।

এছাড়াও ভিডিও তৈরি করার ক্ষেত্রে আপনার জে মিউজিক নেওয়ার প্রয়োজন হয়,

সেগুলো কপিরাইট ফ্রি মিউজিক হতে হবে ।

আপনাকে অবশ্যই ভিডিও এডিটিং সম্বন্ধে ধারণা থাকতে হবে,

ভালোভাবে video aditing করতে পারলে আপনার video ভিউ ভালো হবে

এবং মানুষ দেখে স্বাচ্ছন্দ বোধ করবে । এবং কনটেন্ট ভালো হতে হবে

আপনি যদি ভাল কনটেন্ট নিয়ে ভিডিও করতে পারেন,

তাহলে খুব অল্প দিনেই আপনার সাবস্ক্রাইবার এবং ওয়াচ টাইম পূরণ হয়ে যাবে ।

আর সবচেয়ে বড় কথা আপনার ধৈর্য থাকতে হবে কারণ বড় বড় ইউটিউবাররা

তাদের ধৈর্যের কারণেই এই পর্যায়ে আসতে পেরেছে ।

আপনি যদি ধৈর্যের সাথে ইউটিউব বছরখানেক লেগে থাকতে পারেন তাহলে ফলাফল অবশ্যই পেয়ে যাবেন ।

আরেকটি বিষয় হচ্ছে maintaining consistency in video uploading

যেমন ধরুন আপনি একটি কনটেন্ট আজকে ,

পাবলিস্ট করলেন এখন আপনি ঠিক করবেন যে আপনি কি প্রতিদিন ভিডিও আপলোড করবেন,

না সপ্তাহে একদিন, না মাসে একদিন, আপনি যদি

Daily video আপলোড করেন তাহলে আপনাকে Daily video দিতে হবে

আর আপনি যদি সাপ্তাহিক একটি ভিডিও দিতে চান,

তাহলে আপনার সাপ্তাহিক ভাবেই ভিডিও আপলোড করে

এর ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হবে ।

কনটেন্টের পাশাপাশি, আপনাকে ভালো থামনেল তৈরি করতে হবে

যেন গ্রাহকরা থামনেল দেখে ভিডিও দেখতে আগ্রহী হয় ।

এই হচ্ছে-ইউটিউব থেকে আয় এর মূল কথা ছবি । TECH515 EARNING TIPS

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *